চেয়ারম্যান থেকে ভিক্ষুক

জুড়ী প্রতিনিধি

ছিলেন ইউপি চেয়ারম্যান, হয়েছেন ভিক্ষুক। দুবারের নির্বাচিত চেয়ারম্যান তিনি। এখন রাজপথে ভিক্ষা করেন। তিনি হলেন মৌলভীবাজার জেলার রাজনগর উপজেলার তাহির উদ্দিন। শহরের চেনা পথে পরিচিত জনদের কাছ থেকে হাত বাড়িয়ে যা পান, তা দিয়ে চলে তার দিন। এতে তার লজ্জাবোধ নেই। বরং আছে নির্লোভ জীবন যাপনের দীপ্ত অহমিকা। রাজনগর উপজেলার মনসুরনগর ইউনিয়নের দফাদার ছিলেন তাহির উদ্দিন। ১৯৬২ সালে দফাদার পদে যোগদান করার পর ২০ বছর এ পদে নিয়োজিত ছিলেন। ব্রিটিশ আমলের ‘মায়নর’ পাস তাহির উদ্দিন স্বভাবসুলভ স্পষ্টভাষী এবং স্বাধীনচেতা। এ কারণে ১৯৮০ সালে তৎকালীন ইউপি চেয়ারম্যান মরহুম মজনু মিয়ার সঙ্গে নীতিগত প্রশ্নে বিরোধের জের ধরে দফাদার পদ থেকে পদত্যাগ করেন। অতঃপর মজনু মিয়ার সঙ্গে চ্যালেঞ্জ করে চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে ‘৮৩ সালে নির্বাচিত হন। কিন্তু ভোট সংক্রান্ত পরিকল্পিত মামলার কারণে শপথ গ্রহণে আসে বিধিনিষেধ। একাধিক মামলা ঘাঁটতে ঘাঁটতে চলে যায় পাঁচ বছর। তারপর ১৯৮৮ সালের ইউপি নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে ফের বিপুল ভোটে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন তাহির উদ্দিন। কিন্তু আইনি জটিলতা এবং প্রশাসনিক প্রতিবন্ধকতায় এ যাত্রায়ও চেয়ারম্যানের চেয়ারে বসা হয়ে ওঠে অনিশ্চিত। এক পর্যায়ে আইনি জটিলতা কেটে গেলে প্রধান নির্বাচন কমিশনারের নির্দেশ মোতাবেক ‘৯৬ সালের ৫ আগস্ট তাহির উদ্দিন চেয়ারম্যান পদে শপথ নিয়ে ক্ষমতা নেন। দুই পর্বের নির্বাচিত চেয়ারম্যান হিসেবে ২২ মাস সঠিকভাবে দায়িত্ব পালন করেন তিনি। চেয়ারম্যানের অভিজ্ঞতা বর্ণনা করতে গিয়ে তাহির উদ্দিন বলেন, নীতি ও দুর্নীতির ভারসাম্য রক্ষাকারী পদের নাম হচ্ছে ইউপি চেয়ারম্যান। তার বেশি কিছু বলতে নারাজ তাহির উদ্দিন। তবে তার দুবারের চেয়ারম্যান দায়িত্ব পালনে প্ররোচিত করে কেউ কোনো অনিয়মের দস্তখত আদায় করতে পারেনি। তাছাড়া এলাকার উন্নয়নে সাধ্যমতো প্রচেষ্টা চালিয়েছেন। ৮৮ বছর বয়সী তাহির উদ্দিনের বাড়ি রাজনগর উপজেলার ছিক্কা মধুপুর গ্রামে।
একমাত্র সন্তান গিয়াসুদ্দিন ‘৯৬ সালে জন্ডিস রোগে মৃত্যুবরণ করেন। সংসারে পুত্রবধূ, নাতি-নাতনি ও স্ত্রী মিলিয়ে পোষ্য ৬ জন। ধানি জমি আছে মাত্র দেড় বিঘা। তাতে সংসার চলে না। তাই লাঠির ওপর ভর দিয়ে প্রতিদিন বের হন তাহির উদ্দিন। মৌলভীবাজার শহরই তার প্রধান চারণভূমি। পরিচিতজনদের সামনে পেলে হাত বাড়ান। তাদের প্রদত্ত ভিক্ষায় চলে তার দিনকাল।

 

http://www.dainikdestiny.com/index.php?view=details&type=main&cat_id=1&menu_id=65&pub_no=434&news_type_id=1&index=2

Advertisements

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s